No icon

ম্যুরালটি এখন দৃশ্যমান, তবে...

নিউমার্কেটের ফুটপাতগুলো এখন তুলনামূলক ফাঁকা। হাঁটার কিছুটা জায়গা হয়েছে। মার্কেটের এক নম্বর গেটের পাশে মোড়ের দিকে একটি ম্যুরাল আছে। হকারদের পণ্যের আড়ালে যার সৌন্দর্য এত দিন ঢাকা ছিল। এখন অবশ্য তা দৃশ্যমান। তবে এটি আবারও হকারদের পসরার আড়ালে চলে যাবে কি না, তা নিয়ে সংশয়ের কথা জানালেন পথচারী ও ব্যবসায়ীরা।

ঢাকার বিভিন্ন ঐতিহ্যগত স্থাপনা নিয়ে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে ম্যুরালটি। নিউমার্কেটের এক নম্বর গেট থেকে দুই নম্বর গেটের দিকে যেতে নীলক্ষেত মোড়ের জায়গায় দেয়ালে এটি করা হয়েছে। হকারদের দখলে থাকার কারণে এটি চোখের আড়ালে ছিল। তবে হকার উচ্ছেদের কারণে ওই স্থান এখন ফাঁকা। দূর থেকেই দৃশ্যমান। গত বুধবার দেখা যায়, সামনে ফুলগাছ লাগানো হয়েছে। জায়গাটি যাতে নষ্ট না হয় সে জন্য ম্যুরালের অংশটুকু দড়ি দিয়ে ঘেরাও করে রাখা।

ম্যুরালটির নির্মাতা মৃণাল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘প্রায় সাত বছর আগে এটা করা হয়। সিটি করপোরেশনরই কাজ, হেরিটেজ নামে একটি ফার্ম এর দায়িত্বে ছিল।’ তবে এই শিল্পী অভিযোগ করেন, ১০ লাখ টাকার দেওয়ার কথা হলেও মাত্র ২৫ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনকে (ডিএসসিসি) জানালেও কোনো উদ্যোগ নেয়নি। তিনি বলেন, ঢাকার ৪০০ বছরের ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। এখনো কিছু কাজ বাকি আছে। মৃণাল হক আরও বলেন, জায়গাটিকে সুন্দর করে অন্য রকম পরিবেশ তৈরি করা সম্ভব। তবে এর সৌন্দর্য টিকে থাকা নিয়ে তিনি সংশয় প্রকাশ করেন।

সাত বছর আগে নির্মিত হলেও একরকম আড়ালেই ছিল নিউমার্কেটের ম্যুরাল। নিউমার্কেট, ঢাকা, ৪ অক্টোবর, ২০১৫। ছবি: আবদুস সালামসাত বছর আগে নির্মিত হলেও একরকম আড়ালেই ছিল নিউমার্কেটের ম্যুরাল। নিউমার্কেট, ঢাকা, ৪ অক্টোবর, ২০১৫। ছবি: আবদুস সালামপথচারীরাও ম্যুরালটিকে এখন দেখছেন। আজিমপুর নিবাসী রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘অনেক বছর ধরেই এই দিক দিয়ে যাতায়াত করি। কিন্তু কখনোই চোখে পড়েনি। কিছুদিন আগে দেখলাম।’ তবে তিনিও সংশয় প্রকাশ করেন আগের পরিবেশ ফিরে আসা নিয়ে।

ঢাকা নিউমার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি দেওয়ান আমিনুল ইসলাম বলেন, ম্যুরালের সামনে গাছগুলো সমিতির লাগানো। রক্ষণাবেক্ষণের কাজ সমিতিই দেখছে। তিনি বলেন, সিটি করপোরেশন সৌন্দর্যবর্ধনের কোনো কাজ করেনি। বরং মার্কেটের দেয়াল ঘেঁষে ফুটপাতের ওপর এসটিএস (সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন) নির্মাণ করবে। ম্যুরালের জায়গাটি আবার দখল হয়ে যাওয়ার সংশয়ের ব্যাপারে বলেন, মার্কেটের বাইরের বিষয়টি সিটি করপোরেশনের।

ম্যুরালের ব্যাপারে ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বিলাল প্রথম আলোকে বলেন, ‘ম্যুরালটির বিষয়ে আমার জানা নেই। কারা, কবে করেছে, এই মুহূর্তে বলতে পারছি না। আজ পর্যন্ত এটা নিয়ে কেউ কিছু বলেনি আমাকে।’

Comment