A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined variable: newsPosition

Filename: models/Write_setting_model.php

Line Number: 188

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Write_setting_model.php
Line: 188
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 32
Function: home_category_position

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: Invalid argument supplied for foreach()

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 168

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 168
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 48
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined variable: cat_list

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 172

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 172
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 48
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: implode(): Invalid arguments passed

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 172

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 172
Function: implode

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 48
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined offset: 1

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 17

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 17
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 173
Function: page_data_for_home

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 48
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: Invalid argument supplied for foreach()

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 168

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 168
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 51
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined variable: cat_list

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 172

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 172
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 51
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: implode(): Invalid arguments passed

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 172

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 172
Function: implode

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 51
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined offset: 1

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 17

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 17
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 173
Function: page_data_for_home

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 51
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

ষড়যন্ত্রকারীরা সাবধান
No icon

ষড়যন্ত্রকারীরা সাবধান

জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৪৩তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত স্মরণসভায় বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি : সংগৃহীত

অ- অ অ+

<iframe frameborder="0" height="250" id="google_ads_iframe_/21700576687/Desktop_MR3_0" name="" scrolling="no" src="http://tpc.googlesyndication.com/safeframe/1-0-29/html/container.html" title="3rd party ad content" width="300"></iframe>

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা স্কুলের ছোট ছোট ছেলে-মেয়েকে নিয়ে খেলতে চায় তারা দেশ ও জাতির শত্রু। তাদের খেলতে দেওয়া হবে না। তিনি বলেন, সহিংসতায় উসকানিদাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া রাষ্ট্রের দায়িত্ব। যে যত বড়ই হোক অন্যায় করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। তাদের বিচার হবেই। এখনো যারা ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত করছে তাদের সাবধান করে শেখ হাসিনা আরো বলেন, ‘যাঁরা এ দেশে গণতন্ত্র দেখতে চান না তাঁরাও সাবধান হোন।’ বাংলাদেশের গণতন্ত্র নিয়ে কাউকে ছিনিমিনি খেলতে দেওয়া হবে না বলেও জানান তিনি।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ আয়োজিত স্মরণসভায় শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যাঁরা শিশুদের অন্ধ করে দিতে চান তাঁরা ক্ষমা পাবেন না। কোনো অন্যায়কে প্রশ্রয় দেওয়া হবে না। খুনিদের রাজত্ব এ দেশে আর কায়েম করতে দেওয়া হবে না। যাঁরা ভাবছেন অবৈধভাবে ক্ষমতায় গেলে কিছু পদ-পদবি পাবেন তাঁরা সে আশা বাদ দেন। যাঁদের কারণে বাংলাদেশ বারবার গণতন্ত্র হারিয়েছে তাঁরা আর কোনো দিন অবৈধভাবে ক্ষমতায় আসতে পারবেন না।’

পাকিস্তানি চিন্তা-চেতনায় বিশ্বাসীরা নিরাপদ সড়ক আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য উসকানি দিয়েছে বলে মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, দামি দামি লেখক-সাংবাদিকরা অপরাধ করলে তাঁদের অপরাধ কী কারণে অপরাধ নয়? লেখার স্বাধীনতা আছে। কিন্তু লেখার মাধ্যমে দামি লেখক-সাংবাদিকরা দেশটাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছিলেন, সে উপলব্ধি কি তাঁদের থাকবে না? উসকানিদাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে অন্যায় হয়ে যাবে?

প্রধানমন্ত্রী ষড়যন্ত্রকারীদের উদ্দেশে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘কেউ যদি মনে করেন আমি বড় সাংবাদিক, লেখক, কবি, তাঁদের অপরাধ কোনো অপরাধ না। সেটা ভাবা ঠিক হবে না। আপনি অনেক জ্ঞানী হতে পারেন; কিন্তু সমাজের প্রতি আপনার কি কোনো দায়িত্ব থাকবে না? আর দায়িত্ববোধের পরিচয় যদি না দেন, তাহলে আপনার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে কি অন্যায় হয়ে যাবে? উসকানি দিয়ে যাবেন আর তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে কেন হৈচৈ শুরু হয়ে যাবে?’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘একটি দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে কিশোরদের আন্দোলন শুরু হলো। দুই দিন দেখলাম। তারপর তৃতীয় শক্তি ঢুকে গেল। স্কুল ড্রেস বানানোর হিড়িক পড়ে গিয়েছিল, দর্জিরা স্কুল ড্রেস সাপ্লাই দিয়ে কুলিয়ে উঠতে পারেনি। শিশুদের ব্যাগে থাকবে বই-খাতা-কলম; কিন্তু সেখানে চায়নিজ কুড়াল, পাথর কেন? ব্যাগে যা আছে, যারা অন্যায় করেছে তাদের নিয়ে তো কেউ লিখলেন না। তাদের বিরুদ্ধে তো আপনাদের কালি ফুরিয়ে গেল। সেসব বুড়া হাবড়াকে গ্রেপ্তার করলে কেন হাহাকার? বড় বড় লেখক-সাংবাদিক কি সেটা দেখবেন না, লিখবেন না? তাঁদের কলমের কালি কি ফুরিয়ে গেল? যে যত বড়ই হোক, যারা অন্যায় করবে, তাদের বিচার কি এ দেশে হবে না?’

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার ষড়যন্ত্রে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সঙ্গে তাঁর স্ত্রী খালেদা জিয়াও জড়িত ছিলেন বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান ও তাঁর স্ত্রী খালেদা জিয়া নিয়মিত বঙ্গবন্ধুর কাছে যেতেন। সেটিও হয়তো বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ষড়যন্ত্রের অংশ ছিল। এ কারণে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের তদন্তে বাধা দিয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। বঙ্গবন্ধু খুনিদের বিচার বন্ধে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি এবং জিয়াউর রহমান তাদের দূতাবাসে চাকরিসহ বিভিন্নভাবে পুরস্কৃত করার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতার আত্মস্বীকৃত খুনিদের ভোট চুরি করে পার্লামেন্টে বসিয়েছিলেন জিয়ার স্ত্রী (খালেদা জিয়া)। তার অর্থ কী দাঁড়াচ্ছে, জিয়াউর রহমান একাই নন, তাঁর স্ত্রীও ১৫ আগস্টের হত্যার ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘খুনিরা খুনিই হয়। এই খুনিরা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়েছে। বারবার আমাকে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। কাজেই এদের হাতে দেশের ক্ষমতা গেলে দেশের কি উন্নতি হবে, দেশের মানুষ কি ন্যায়বিচার পাবে?’

শেখ হাসিনা বলেন, অন্যায়ের মধ্য দিয়ে যাদের ক্ষমতা দখল তারা কখনো ন্যায়বিচার করতে পারে না। ১৫ আগস্ট বাঙালি জাতির জন্য সবচেয়ে কলঙ্কজনক দিন। বঙ্গবন্ধু মাত্র সাড়ে তিন বছর ক্ষমতা পেয়েছিলেন। জাতির পিতা বেঁচে থাকলে, তাঁর হাতে রাষ্ট্রক্ষমতা যদি থাকত, তবে স্বাধীনতার ১০ বছরের মধ্যে বাঙালি জাতি ক্ষুধা, দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত জাতি হিসেবে গড়ে উঠত, উন্নত জাতি হিসেবে বিশ্বে মর্যাদা পেত।

কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ভর করে বাংলাদেশকে অস্থিতিশীল করার পেছনে স্বাধীনতাবিরোধী সবুর খানের বংশধররা জড়িত বলে দাবি করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘যারা স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেনি, যারা জাতির পিতাকে হত্যা করেছে, কারাগারে জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করেছে, তারা তো এ দেশের উন্নয়ন চায় না। কোমলমতি স্কুল শিক্ষার্থীরা কিছু দাবি নিয়ে রাস্তায় নেমেছে, আমরা তাদের দাবি বাস্তবায়ন করেছি। কিন্তু কিছু লোক একে সুযোগ হিসেবে নিয়ে ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি, সে সুযোগে তারা উসকানি দিয়ে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করতে চেয়েছে। তাদের সূত্র কোথায়?’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত এবং এখনো চক্রান্ত করে যাচ্ছে, তাদের ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে। কারণ তারা নিজেরা ভালো থাকতে চায়, বাংলাদেশের কল্যাণ দেখতে চায় না। তাদের অর্থের উৎস কোথায়? তারা কিছু হলেই আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলে। 

শেখ হাসিনা বলেন, ‘গণতন্ত্র দিয়েছে বলে অনেকে জিয়াউর রহমানকে বাহবা দেওয়ার চেষ্টা করেছে। আমার প্রশ্ন, জিয়াউর রহমান কিভাবে ক্ষমতায় এসেছিলেন? অস্ত্রের মুখে বিচারপতি সায়েমকে হটিয়ে নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করলেন। পাকিস্তানের এজেন্ট হিসেবে কাজ করতেন তিনি। গুম আর হত্যা করাই তো ছিল জিয়ার কাজ। হাজার হাজার সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা করেছেন তিনি। একে একে ১৯টি ক্যু করেছিলেন জিয়াউর রহমান। একবারে ১০-১২ জন করে সেনা কর্মকর্তাকে ফাঁসি দিয়ে হত্যা করা হয়েছে।’

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা জাহাঙ্গীর কবির নানক ও সংসদ সদস্য সিমিন হোসেন রিমি।

Comment