A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined variable: newsPosition

Filename: models/Write_setting_model.php

Line Number: 188

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Write_setting_model.php
Line: 188
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 32
Function: home_category_position

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: Invalid argument supplied for foreach()

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 168

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 168
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 48
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined variable: cat_list

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 172

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 172
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 48
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: implode(): Invalid arguments passed

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 172

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 172
Function: implode

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 48
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined offset: 1

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 17

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 17
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 173
Function: page_data_for_home

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 48
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: Invalid argument supplied for foreach()

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 168

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 168
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 51
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined variable: cat_list

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 172

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 172
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 51
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: implode(): Invalid arguments passed

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 172

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 172
Function: implode

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 51
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Undefined offset: 1

Filename: models/Home_model.php

Line Number: 17

Backtrace:

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 17
Function: _error_handler

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/models/Home_model.php
Line: 173
Function: page_data_for_home

File: /home/sottokonthonews/public_html/application/controllers/Article_controller.php
Line: 51
Function: home_data

File: /home/sottokonthonews/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

ছাত্রলীগের দায় অস্বীকার ও কোটা সংস্কারে অনীহা
No icon

ছাত্রলীগের দায় অস্বীকার ও কোটা সংস্কারে অনীহা

কোটা সংস্কারের আন্দোলন নতুন করে চাঙা হওয়ার পর সংগঠকদের পিটিয়ে শায়েস্তা করার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে সেই দায় অস্বীকার করেছে ছাত্রলীগ। হামলায় জড়িত ব্যক্তিদের সাংগঠনিক পরিচয় প্রকাশের পরও সংগঠনের নেতারা দাবি করেছেন সাধারণ ছাত্ররা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ রক্ষার প্রয়োজনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টাকে প্রতিহত করেছে। প্রথমে অবশ্য এটিকে আন্দোলনকারীদের নিজেদের গন্ডগোল হিসেবে অপব্যাখ্যার চেষ্টাও হয়েছিল। ছাত্রলীগের এই ভূমিকার ব্যাখ্যা কী? অপকর্মের জন্য লজ্জা পেয়ে অনুশোচনা? নাকি, এটি প্রমাণের চেষ্টা যে এসব হামলা কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা, যার সঙ্গে সরকার বা ক্ষমতাসীন দলের কোনো সম্পর্ক নেই?

গত কয়েক দিনে কোটা সংস্কারের দাবি নিয়ে যেসব ঘটনা ঘটেছে, তা পর্যালোচনা করলে দেখা যায়: ১. এই সময়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শান্তিপূর্ণ সংবাদ সম্মেলন এবং মানববন্ধনের মতো কর্মসূচিতে হামলা চালিয়ে সেগুলো ভেঙে দেওয়া হয়েছে; ২. টেলিভিশনের পর্দা বা খবরের কাগজে আসা ছবিতে দেখা গেছে ছাত্রীরা লাঞ্ছিত হয়েছেন; ৩. আন্দোলনের একাধিক নেতাকে অপহরণ করে নিপীড়ন এবং পরে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে; ৪. ফেসবুকে সরাসরি বক্তব্য সম্প্রচারের জন্য তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের এবং ৫. ক্যাম্পাসে সন্দেহের বশে সাধারণ নাগরিকদের লাঞ্ছিত করা। দেশের প্রচলিত আইনে এগুলোর প্রত্যেকটিই শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

এসব ঘটনায় ছাত্রলীগের সঙ্গে প্রশাসনের, বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এবং পুলিশের একধরনের তাল মিলিয়ে চলার আলামতও স্পষ্ট। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগারের সামনে ছাত্রলীগের হামলার সময়ে মাত্র কয়েক শ গজ দূরে শাহবাগে অবস্থানরত পুলিশ নিষ্ক্রিয় ছিল। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তাঁদের ব্যাখ্যা ছিল, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া তাঁরা সেখানে কিছু করতে পারেন না। আবার দ্বিতীয় দিনে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মানববন্ধনের কর্মসূচির আগে সেখানে পুলিশ থাকলেও ছাত্রলীগ হামলা চালানোর আগে তারা সেখান থেকে সরে যায়। আবার বিশ্ববিদ্যালয়ে গ্রন্থাগারের সামনে হামলা থেকে ছাত্রদের রক্ষা করতে দু-একজন শিক্ষক সচেষ্ট হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোক্টর দুদিনের ঘটনার কিছুই জানেন না বলে দাবি করেন। কেননা তাঁর কাছে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। বিশ্ববিদ্যালয়ে শৃঙ্খলার দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তার কলাভবনের দপ্তরে যে গোলযোগের আওয়াজ এমনিতেই পৌঁছানোর কথা, অভিযোগ না পেলে তিনি সেই হাঙ্গামা টের পান না।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, পুলিশ ও পেটোয়া (ছাত্র) লীগ এর মধ্যে এই অদ্ভুত সমন্বয় কাকতালীয় বলে কেউ হয়তো দাবি করতে পারেন। কিন্তু সন্দেহটা আরও জোরালো হয় যখন আন্দোলনকারীদের প্রতি সহানুভূতিশীল নাগরিকদের আইনগত প্রতিবাদ সমাবেশে পুলিশ মারমুখী হয়ে ওঠে। এত কিছুর পরও যখন আন্দোলনকারীদের দমানো যাচ্ছে না, মিছিল-প্রতিবাদ চলছেই, তখন ক্ষমতাসীন দল এবং সরকার এতে উসকানি এবং রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র আবিষ্কারের কৌশল বেছে নিয়েছে। সরকারের যেকোনো সমালোচনা ও ভিন্নমতকে জামায়াত-শিবিরের ষড়যন্ত্র অভিহিত করার বিষয়টি ক্ষমতাসীনদের অভ্যাসে পরিণত হচ্ছে কি না, এমন প্রশ্ন তাই খুবই স্বাভাবিক। ভুল নীতি কিংবা পদক্ষেপের যৌক্তিক বিরোধিতায় আন্দোলনকারীরা বিরোধী দল বিএনপি কিংবা তাদের বর্তমান মিত্র জামায়াতের সমর্থন কখনো চেয়েছেন, এমন কোনো তথ্য কোথাও পাওয়া যায় না। আবার রাজনীতিতে এসব দল নিষিদ্ধও নয়। সুতরাং কোটা সংস্কারের আন্দোলনকে এসব দল সমর্থন করলেই তাকে ষড়যন্ত্র অভিহিত করা বিশ্বাসযোগ্য হয় কীভাবে?

কোটা সংস্কারবিষয়ক ঘটনাক্রম পর্যালোচনায় ধারণা হয়, সরকার এই সংস্কারের যৌক্তিকতা মানতে প্রস্তুত নয়। এই আন্দোলন ভাঙার চেষ্টায় এর আগেও ছাত্রলীগ ক্যাম্পাসে শক্তির মহড়া দিয়েছে, সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের মারধর করেছে। রোকেয়া হলে মধ্যরাতের হাঙ্গামার কথা সহজে কারও ভোলার কথা নয়। তবে, গত এপ্রিলের প্রথম দিকে আন্দোলন যখন তুঙ্গে, তখন প্রধানমন্ত্রী সংসদে ঘোষণা দেন যে কোটা থাকবে না। সংস্কারের বদলে পুরো ব্যবস্থাটি বাতিলের ঘোষণায় স্পষ্টতই সবাই বিস্মিত হন। বিস্ময় আরও বাড়ে যখন আন্দোলনকারীদের হেনস্তা করার জন্য সমালোচিত ছাত্রলীগ তখন ওই ঘোষণার পর আন্দোলনের কৃতিত্ব দাবি করে বিজয় মিছিল করে।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের উপায় ঠিক করার জন্য তখন সরকারিভাবে জানানো হয় যে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি করা হবে। এরপর আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সরকারের পক্ষ থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা আলোচনায়ও বসেন। কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাশেদ খান সোমবার আদালতে বলেছেন, তিন দফা এই বৈঠক হয়েছে। গ্রেপ্তারের পর রিমান্ড আবেদনের শুনানির সময়ে তিনি আদালতকে জানিয়েছেন যে সর্বশেষ বৈঠকটি হয়েছে গত ১৪ মে।

অথচ ওই একই দিনে সরকারের জ্যেষ্ঠতম আমলা মন্ত্রিপরিষদ সচিব কোটার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার অগ্রগতি সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘এটা সরকারের ঊর্ধ্বতন পর্যায়ে সক্রিয় বিবেচনাধীন আছে। আমাদের পর্যায়ে এখনো আসেনি।’ ওই একই দিন সন্ধ্যায় সরকারের আরেকটি ঘোষণায় একটি কমিটি গঠনের কথা জানানো হয় যে কমিটিকে ১৫ দিনের মধ্যে বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সুপারিশ দিতে বলা হয়েছে। এই কমিটিতে কোনো শিক্ষাবিদ কিংবা বিশেষজ্ঞকে রাখা হয়নি। শুধু সরকারি আমলাদের নিয়ে গঠিত এই কমিটি সরকারের ইচ্ছার বিরুদ্ধে স্বাধীনভাবে কোনো মতামত দিতে সক্ষম হবে, এমনটি ভাবা কঠিন।

কোটা সংস্কারের দাবিকে শক্তিপ্রয়োগের মাধ্যমে দমিয়ে রাখায় ছাত্রলীগের গুন্ডামি, চাপের মুখে কমিটি গঠনের ঘোষণা এবং আন্দোলনে ষড়যন্ত্রের তকমা লাগানোর চেষ্টায় কোনো শুভ ইঙ্গিত মেলে না।

সরকার তার প্রধান রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বিএনপিকে সভা-সমাবেশ করতে না দিয়েও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সফল হওয়ায় তার মধ্যে সম্ভবত একটি অন্য ধরনের আত্মবিশ্বাস তৈরি হয়েছে। যে দলের উত্থান ও বিকাশ আন্দোলনে, সেই আওয়ামী লীগের নেতারা এখন হয়তো আরও আত্মবিশ্বাসী যে তাঁদেরকে রাজনৈতিক চাপ দিয়ে কেউ কিছু আদায় করতে পারবে না। কিন্তু তাঁরা বুঝতে পারছেন না যে এই আত্মবিশ্বাস তাঁদেরকে বিচ্ছিন্ন করে তুলছে, প্রশাসন এবং পেশিশক্তির ওপর নির্ভরশীল করে ফেলছে। এ ধরনের শাসনব্যবস্থা গণতন্ত্রসম্মত নয়।

সূত্রঃ প্রথম আলো 

 

Comment