No icon

কমানোর আবেদন করে বাড়ল শাস্তি!

ডোপিংয়ের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এর আগে ৬ মাসের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছিলেন সামির নাসরি। এই রায়ের বিপক্ষে উয়েফায় আপিল করেছিলেন ফ্রান্সের সাবেক এ মিডফিল্ডার। কিন্তু আপিলে তাঁর শাস্তির মেয়াদ বেড়েছে

শিরায় পারফরম্যান্স বর্ধক নিষিদ্ধ তরল নেওয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় গত ফেব্রুয়ারিতে ফুটবল থেকে ছয় মাস বহিষ্কার হয়েছিলেন সামির নাসরি। উয়েফার শৃঙ্খলা কমিটির এই শাস্তির বিপক্ষে আপিল করেছিলেন ফ্রান্সের সাবেক এ মিডফিল্ডার। নাসরির কপাল খারাপ, আপিল করে উল্টো শাস্তির মেয়াদ বাড়িয়েছেন! কারণ, আপিলের পর তাঁর শাস্তির মেয়াদ ৬ মাস থেকে উন্নীত হয়েছে ১৮ মাসে।

২০১৬ সালে লস অ্যাঞ্জেলেসে ছুটি কাটাতে গিয়ে এক ক্লিনিকে ‘মাইক্রোনিউট্র্যান্ট’ গুণাগুণসমৃদ্ধ তরল গ্রহণ করেছিলেন নাসরি। ওয়ার্ল্ড অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সির (ডব্লিউএডিএ) বেঁধে দেওয়া মাত্রার চেয়ে পরিমাণটা বেশি থাকায় তিনি নিষিদ্ধ হয়েছিলেন। ম্যানচেস্টার সিটির সাবেক এই মিডফিল্ডার শাস্তির বিপক্ষে আপিল করায় কাল উয়েফার নৈতিকতা ও ডিসিপ্লিনারি কমিটির পরিদর্শক রায় দেন। শাস্তির সে মেয়াদ যথেষ্ট নয় মনে করে আগের ৬ মাসের সঙ্গে আরও ১২ মাস যোগ করেছে উয়েফার এই কমিটি। অর্থাৎ নাসরি এখন দেড় বছরের নিষিদ্ধ।

নাসরির শাস্তির মেয়াদ বাড়ানো নিয়ে উয়েফার বিবৃতিতে বলা হয়, ‘গত ২২ ফেব্রুয়ারিতে উয়েফার নৈতিকতা ও ডিসিপ্লিনারি কমিটির সিদ্ধান্ত সংশোধন করা হলো এভাবে—১. সামির নাসরি ১৮ মাসের জন্য নিষিদ্ধ। নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়েছে ১ জুলাই, ২০১৭ থেকে। ২. ২০১৮ সালের ১ নভেম্বর যেকোনো ফুটবল ক্লাবের অনুশীলনে ফিরতে পারবেন নাসরি।’

Comment